৮ এপ্রিল থেকে উহান লকডাউন প্রত্যাহার

11
WUHAN, CHINA - FEBRUARY 03: (CHINA OUT) A man cross an empty highway road on February 3, 2020 in Wuhan, Hubei province, China. The number of those who have died from the Wuhan coronavirus, known as 2019-nCoV, in China climbed to 361 and cases have been reported in other countries including the United States, Canada, Australia, Japan, South Korea, India, the United Kingdom, Germany, France, and several others. (Photo by Getty Images)
Print Friendly, PDF & Email

ইন্টারন্যাশনাল নিউজ ডেস্ক:
মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব চীনের মধ্যাঞ্চলীয় একটি প্রদেশের যে রাজধানী শহর থেকে শুরু হয়েছিল, সেই উহান গত আড়াই মাস অবরুদ্ধ (লকডাউন) থাকার পর অবশেষে সেখানকার বাসিন্দাদের মুক্তি মিলছে। আগামী ৮ এপ্রিল শহরটিতে আরোপিত লকডাউন প্রত্যাহার করছে কর্তৃপক্ষ।

চীনের মধ্যাঞ্চলীয় ওই প্রদেশের নাম হুবেই। সেখানকার প্রাদেশিক স্বাস্থ্য কমিশন এক ঘোষণায় উহান থেকে লকডাউন প্রত্যাহারের এই দিনক্ষণ জানিয়েছে। তবে উহান বাদে হুবেই প্রদেশে প্রবেশ ও প্রদেশটি থেকে বের হওয়ার ওপর আরোপিত সব বিধিনিষেধ আজ বুধবার থেকে তুলে নেওয়া হবে বলে জানান তারা।

কমিশন জানিয়েছে, আগামী ৮ এপ্রিল উহানের ওপর আরোপিত লকডাউনও প্রত্যাহার করা হবে। তখন শহরটির বাসিন্দারা কর্তৃপক্ষের বেঁধে দেওয়া স্বাস্থ্যগত নীতিমালা মেনে শহর ছাড়ার সুযোগ পাবেন বলে জানান হুবেইয়েল স্বাস্থ্য কমিশনের কর্মকর্তারা। খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।

২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর হুবেই প্রদেশের এই রাজধানী শহর উহানে প্রথম করোনাভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত করা হয়—যে ভাইরাস ইতোমধ্যে বিশ্বের ১৯৬টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে, প্রাণ কেড়ে নিয়েছে প্রায় ২০ হাজার মানুষের। ভাইরাসটি বিশ্বের ৪ লাখ ৩৫ হাজারের বেশি মানুষকে আক্রান্ত করেছে।

উহানে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি প্রথমবারের মতো শনাক্ত হওয়ার অল্পদিনের মাথায় চীনা কর্তৃপক্ষ প্রথমে শহরটি পরে পুরো প্রদেশ লকডাউন ঘোষণা করে। তখন থেকে আড়াই মাস ধরে সেখানকার মানুষ জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হতে পারেননি। প্রদেশটি হয়ে পড়েছিল বিচ্ছিন্ন একটি দ্বীপ।

প্রাদেশিক স্বাস্থ্য কমিশনের দেওয়া হিসাব অনুযায়ী, প্রদেশটিতে মোট ৬৭ হাজার ৮০১ জন করোনায় আক্রান্ত ও তিন হাজার ১৬০ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে। কিন্তু প্রদেশটিতে নতুন আক্রান্তের সংখ্যা হ্রাস পেয়েছে। গত ছয় দিনে সেখানে মাত্র একজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।