করোনা সচেতনতা: ব্যতিক্রমী প্রচারণায় মাঠে নেমে প্রশংসিত যে জনপ্রতিনিধি (ভিডিও)

127
Print Friendly, PDF & Email

ডিষ্ট্রিক্ট করসপন্ডেন্ট, কুষ্টিয়া:
নিজের নির্বাচনী এলাকার নাগরিকদের মারাত্মক করোনা ভাইরাস বিষয়ে সতর্ক করে জনসচেতনতা বোধ তৈরি করতে ব্যতিক্রমী প্রচারণায় মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন এক জনপ্রতিনিধি। তিনি কুষ্টিয়ার ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন জনপদ কুমারখালী পৌরসভার প্যানেল মেয়র ও জনপ্রিয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর এস এম রফিক। ’করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও করনীয়’ শিরোনামে পৌর মেয়রের নেওয়া উদ্যোগ থেকে প্রচারপত্র হিসেবে লিফলেটও মানুষের হাতে হাতে তুলে দিচ্ছেন এস এম রফিক।

আর একজন মানবিক ও দায়িত্ববান কাউন্সিলর হিসেবে রফিকের এ উদ্যোগ অন্য এলাকার জনপ্রতিনিধিদের জন্য দৃষ্টান্ত বলেই মনে করছেন সচেতন নাগরিক সমাজ।

বিগত প্রায় একসপ্তাহ ধরে কুমারখালী পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ডের বারবার নির্বাচিত এ কাউন্সিলর এস এম রফিক জনপ্রিয় পৌর মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান অরুণের উদ্যোগে এবং তার নিজের বিবেকের তাড়না থেকেই ব্যাতিক্রমী এ প্রচারণায় অংশ নিয়েছেন বলে জানান। পরিস্থিতি মোকাবিলায় খুব দ্রুত সঠিক পদক্ষেপ নিতে বলেও মনে করেন সকলের প্রিয় এস এম রফিক।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে গত ১৫ মার্চ থেকে প্রতিদিনই পায়ে হেটে মানুষের দুয়ারে দুয়ারে যাচ্ছেন প্যানেল মেয়র এস এম রফিক। কুমারখালী পৌর মেয়রের তৈরিকৃত জনসচেতনতামূলক প্রচারপত্র লিফলেট হাতে বিবেকের তাড়নায় হাট-বাজার থেকে শুরু করে খেয়া ঘাট, বাস ষ্ট্যান্ড, রেল ষ্টেশনসহ প্রতিটি জনসমাগমস্থলে ব্যাপক প্রচারণা চালাচ্ছেন জনদরদী জনপ্রতিনিধি এস এম রফিক।

’করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও করনীয়’ শিরোনামে দরকারী বিভিন্ন তথ্য সম্বলিত লিফলেট বিতরণকালে ব্যতিক্রমী জনপ্রতিনিধি এস এম রফিক সকলের দারুণ সহযোগিতা ও সাড়া পাচ্ছেন উল্লেখ করে জানান, এলাকার সকলস্তরের জনগনও স্বতঃফুর্তভাবে তার প্রচারণায় অংশ নিচ্ছেন। এক্ষেত্রে মানুষ তার দেখাদেখি নিজে থেকে এগিয়ে এসেও তার সঙ্গে রাস্তা-ঘাট, দোকান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে প্রচারপত্র বিলি ও বিতরণ কাজে দারুণ উৎসাহ এবং সহায়তা দিচ্ছেন। সেজন্য তিনি এলাকার জনগনের নিকট কৃতজ্ঞতাও প্রকাশ করেন।

প্রসঙ্গত; কুমারখালী উপজেলায় বিদেশফেরত সর্বশেষ নয় জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখেছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

জনস্বাস্থ্য ও ব্যক্তি নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে সচেতন প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে বলেও মনে করেন এস এম রফিক। তার মতো প্রত্যেকটি নির্বাচনী এলাকায় সকলের উচিৎ করোনা ভাইরাস সম্পর্কে ’আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক হোন’- এ ধরনের জনসচেতনতা মূলক লিফলেট বিতারনসহ জনগনের পাশে দাঁড়ানো কর্তব্য।

কুমারখালী পৌরসভা পক্ষ থেকে হাট-বাজারে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ করনীয় লিফলেট বিতারনের এ খবরাখবর প্রতিদিনই এস এম রফিক তার নিজের ফেসবুক ওয়ালেও পোষ্ট করছেন। সেখানেও অসংখ্য মানুষ বিপুল সাড়া দিয়ে লাইক ও কমেন্টের মাধ্যমে তাকে উৎসাহিত করার পাশাপাশি এই সংকট মোকাবিলায় এ ধরণের পদক্ষেপের জন্য করছে চমৎকার প্রশংসা।

মেসবাউল হক নামের একজনের মন্তব্য- গুডজব কাকু। খান আতাউর রহমান লিখেছেন- আপনি আমাদের গর্ব। কাজল কুমার নামের একজনের মন্তব্য- শ্রদ্ধেয় বড় ভাই ভলো লাগে আপনার কাজগুলো। নাজমুস সাকিব লিখেছেন- কুমারখালীর আইডল, শুভ কামনা রইলো। সুমন সুমন নামের একজন লিখেছেন- ধন্যবাদ মামা আপনার জন্য অনেক দোয়া রইলো। ফরিদ বাবু লিখেছেন- পরিশ্রম স্বার্থক হবে ইনশাআল্লাহ। নাজমুস সাকিব লিখেছে- ভাই আপনার জন্য অনেক অনেক শুভকামনা। আল্লাহ যেন আপনাকে সারা জীবন এইভাবে ভাল কাজ করা সুযোগ দেয়। আশরাফুল আলম লিখেছে- সবাইকে এইরকম উদ্যোগ নেওয়া উচিৎ, অনেক অনেক ধন্যবাদ ভাই। জি এম বকুল লিখেছে- অনেক ভালো কাজ। দোয়া রইলো ভাইজান। আবু বক্কর সিদ্দিক লিখেছে- ভেরি গুড ওয়ার্ক। মো. শরিফুল ইসলাম লিখেছে- শুভ কামনা ভাই এইভাবে এগিয়ে যান আপনি, সকলস্তরের মানুষকে সচেতন করুন শুভ কামনা প্রিয় ভাই। আব্দুল মজিদ লিখেছে- ধন্যবাদ কাউন্সিলর সাহেব। শেখ রাসেল লিখেছে- দারুণ কাজ। এটাই সমাজকর্মীর দায়িত্ব। মুগ্ধতা একরাশ। আন্তরিক অভিবাদন। আশরাফুল হক টিপু লিখেছে- শুভ কামনা। ভাল কাজে আল্লাহর সব রকম রহমত পাওয়া যায়। অসীম কুমার লিখেছে- ভালবাসা রইলো নেতা। জোর্য়াদ্দার মুরাদ লিখেছে- আর সবাই কোথায়…ভাগ্যিস রফিক ছিলো। মনিরুজ্জামান টুটুল লিখেছে- প্রশংসনীয়। সামরুজ্জামান লিখেছে- কুমারখালী পৌর কাউন্সিলর সাহেবকে ধন্যবাদ… ইত্যাদি।

জনপ্রিয় জনপ্রতিনিধি এস এম রফিকের ফেসবুক ভিডিও

শত শত মানুষ ব্যতিক্রমী ও নিষ্ঠাবান জনপ্রতিনিধি এস এম রফিকের জনসচেতনতামূলক এই কর্মকান্ডে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে অভিবাদন জানিয়ে বিভিন্ন ধরনের প্রশংসনীয় কথা লিখে তাকে উৎসাহিত করার মধ্যদিয়ে আন্তরিক সমর্থন জানিয়েছে। পাশাপাশি ঘটনাটি অন্য এলাকার জনপ্রতিনিধিদের জন্য এক নতুন দৃষ্টান্ত বলেও মন্তব্য সচেতন নাগরিক সমাজের।