একজন রাফিউজ্জামান সিফাতের করোনা সর্তকতা

39
Print Friendly, PDF & Email

রাফিউজ্জামান সিফাত:
আজ বাসার ড্রয়িংরুমে আমার পরিবারের সবাইকে ডেকে বসেছি।

আমি ফিল করেছি আমি যা যা জানি আমার পরিবারের সাথে সেই কথাগুলো শেয়ার করতে

একঃ ঘরের সিনিয়ররা আজ থেকে ঘরের বাইরে যাবেন না। লোকজনের সাথে দেখা সাক্ষাৎ বন্ধ। টোটালি অফ। যা যা লাগবে সব তাদের সামনে এনে হাজির করা হবে কিন্তু তারা বাইরে যাবে না। ঘরে নামায পড়বে।

দুইঃ বাসার সবাই (ছোট থেকে বড়) সাবান দিয়ে বারবার হাত ধুবে। এই নিয়ম যে পালন করবে না, তার জন্য জরিমানার ব্যবস্থা আছে। (গত দুই সপ্তাহ ধরেই এই নিয়ম চলছে, জরিমানা লাগেনি)

তিনঃ আমাদের বাসায় যে ছেলে কাজে সাহায্য করে তাকে বিশেষভাবে ট্রেনিং দেয়া হচ্ছে। কড়া নিয়ম, বাজার সদাই বা বাইরে থেকে ঘরে ঢুকেই আগে সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে। বাইরের জুতা কেউ ঘরে আনতে পারবে না।

চারঃ প্রতিদিনের কাপড় প্রতিদিন পরিষ্কার করা হচ্ছে। (আগেও চলত, তবে আজ থেকে মনিটরিং করা হবে)

পাঁচঃ আমার বোনের ছোট ছেলে বেড়াতে এসেছে। তাকে গত কয়েকদিন ধরে দিন বেশ কয়েকবার করে হাত ধোয়া শিখিয়েছি। মাশ আল্লাহ্‌ এখন আমি হাত ধুতে ভুলে গেলে সে আমাকে বলে -“মামা, আমাকে ধরবে না। আগে সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে আসো”

ছয়ঃ বাসার সেক্রেটারি আংকেলের সাথে কথা হয়েছে। এখন থেকে প্রতিদিন দুইবার করে লিফটের বোতাম, সিঁড়ির হাতল দরজার নব কেয়ারটেকার ছেলেকে দিয়ে পরিষ্কার করানো হবে। এবং লিফটের দরজার করোনা প্রতিরোধের নিয়ম ঝুলানো হবে। আমি প্রিন্ট করে নিয়ে আসব।

সাতঃ আমাদের বাসায় মাসের বাজার মাসের শুরুতেই করা হয়। এইবারও তাই হয়েছে। অতিরিক্ত কিছুই নয়, বেসিক জিনিসগুলো ঠিকঠাক আছে সেগুলো চেক করে দেখা হয়েছে।

ব্যাক্তি হিসেবে আমি আমার জায়গা থেকে আমার দায়িত্বটুকু পালনের চেষ্টা করেছি।

আমি ডাক্তার নই কিন্তু বিশ্বাস করেন গত দুইমাস ধরে করোনা বিস্তারের শুরু থেকে আমি করোনা বিষয়ে কন্সার্ন ছিলাম। প্রতিদিন আমি প্রচুর আর্টিকেল পড়েছি, নিউজের অথেনটিক সোর্স খুঁজেছি। আমার টাইম লাইন ঘুরে আসলেই দেখতে পারবেন মাসখানেক ধরে বিভিন্ন ফেসবুক পোস্টে করোনা নিয়ে আমি বারবার লিখে গেছি। কিন্তু যথাযথ কতৃপক্ষের নজরে আসেনি। দুইমাস সময় পেলেও করোনার পুর্ব প্রস্তুতিতে আমরা বহু পিছিয়ে পড়েছি যা আত্মঘাতী হতে পারে।

আমি বিশ্বাস করি সময় এখনও চলে যায়নি।

সরকারের প্রতি আবেদন, আতশবাজি বাদ দিয়ে ঠিক এই মুহুর্তে, রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ শক্তি প্রয়োগ করে করোনাকে যুদ্ধের ময়দান হিসেবে ট্রিট করুন। প্রয়োজনে সেনাবাহিনীকে যুক্ত করে বিশেষজ্ঞদের সাহায্য নিয়ে স্পেশাল ফোর্স গঠন করুন। যা করবার এখনি করুন।

সময় চলে যাচ্ছে, সময়কে অবহেলা করবেন না।
রাফিউজ্জামান সিফাতের ফেসবুক ওয়াল থেকে।