টয়লেট পেপার নিয়ে এবার তিন নারীর মারামারি (ভিডিও)

30
Print Friendly, PDF & Email

ইন্টারন্যাশনাল নিউজ ডেস্ক:
করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে টয়লেট পেপার কেনা নিয়ে মারামারিতে জড়িয়ে পড়লেন তিন নারী। এ ঘটনা ঘটেছে অস্ট্রেলিয়ার সিডনি শহরের একটি সুপার মার্কেটে। ওই মহিলাদের মারপিট এমন পর্যায়ে পৌঁছে যায়, হস্তক্ষেপ করতে বাধ্য হন সুপার মার্কেটের কর্মীরা। তারা পুলিশেও খবর দেন। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে দুই নারীকে গ্রেপ্তার করেছে।

বৃটেনের একটি ট্যাবলয়েড পত্রিকার অনলাইন সংস্করণ এ খবর প্রকাশ করেছে। সেখানে ওই তিন নারীর মারামারির ভিডিও অনলাইনে ব্যাপকভাবে শেয়ার দেয়া হয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যায়, একদল নারী একে অন্যকে ঘুষি মারছেন। কুদি মেরে এগিয়ে যাচ্ছেন অন্যের দিকে। টয়লেট পেপারের একটি জাম্বো প্যাকের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে যেন তারা যুদ্ধ করছেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা তাদেরকে থামতে বলছিলেন। কিন্তু কে শোনে কার কথা! ফলে সুপার মার্কেটটির স্টাফরা এই লড়াই থামাতে হস্তক্ষেপ করেন।

ভিডিওতে দেখা যায়, একজন নারী অন্য একজনের বিরুদ্ধে ক্ষোভ ঝাড়তে ঝাড়তে এগিয়ে গিয়ে তার চুল টেনে ধরেছেন। তিনি চিৎকার করে বলছেন, আমি শুধু এক প্যাকেট (টয়লেট পেপার) চাই। অন্যজন টয়লেট পেপার সমেত একটি ট্রলি দিয়ে তাকে ধাক্কা মারেন। বলেন, না। তুমি এক প্যাকেটও পাবে না। এ সময় তাদেরকে থামতে বলেন লোকজন। কিন্তু তাদের ধস্তাধস্তি চলতেই থাকে। স্টাফরা পুলিশে খবর দেন। তারা গিয়ে চুল্লোরা উলওয়র্থ সুপার মার্কেটে ৪৯ বছর বয়সী একজন নারীর সঙ্গে কথা বলেন। এই নারীকে ওই সময় অপদস্ত করা হয়েছিল।

অস্ট্রেলিয়ায় করোনা ভাইরাসে মারা গেছেন তিনজন। আক্রান্ত হয়েছেন ৭৭ জন। ফলে সেখানে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের সঙ্কট দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে টয়লেট পেপারের সঙ্কট খুব বেশি দেখা দিয়েছে। কারণ, যে যেভাবে পারেন সেভাবেই টয়লেট পেপার জড়ো করছেন। তাদের চাহিদা সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে কর্তৃপক্ষ। এ কারণে, বিভিন্ন ইভেন্টে প্রথম পুরস্কার হিসেবে দেয়া হচ্ছে টয়লেট পেপার।

অন্যদিকে, জনগণকে আহাজারি, আতঙ্কিত না হতে অনুরোধ করা হয়েছে। সর্বশেষ দুই নারীর ওই মারামারি সম্পর্কে পুলিশ বলেছে, এই ধরণের সহিংসতা সহ্য করা হবে না। এমন আচরণ যারা করবেন, তারা অপরাধ করবেন। তাদেরকে এ জন্য আদালত পর্যন্ত যেতে হবে।

ওই ঘটনায় যে দুই নারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের বাড়ি ওই এলাকার ব্যাংক টাউনে। তাদের একজনের বয়স ২৩ বছর। অন্যজনের ৬০। তাদেরকে আগামী ২৮ এপ্রিল ব্যাংক টাউন লোকাল কোর্টে হাজির হতে বলা হয়েছে।