জয়, মাশরাফির জয়

19
Print Friendly, PDF & Email

স্পোর্টস করসপন্ডেন্ট, ঢাকা:
এমন সমাপ্তিই চেয়েছেন তিনি। যাবার বেলায় অন্তত এভাবে হাসতে চেয়েছেন। যাক মহানায়কের সেই স্বাদটা বোধ হয় পূরণ হলো।

সিলেটে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে বৃষ্টি আইনে জিম্বাবুয়েকে ১২৩ রানে পরাজিত করল বাংলাদেশ। এ তো মাশরাফির জয়। এ তার জন্য সতীর্থদের উপহার।

দীর্ঘ কুড়ি বছরের ক্যারিয়ারে কত উত্থান পতন দেখেছেন। কতবার চোটের কামড় খেয়েছেন। হোঁচট খেয়ে পড়ে আবারও উঠে দাঁড়িয়েছেন। স্বপ্ন দেখিয়েছেন বাংলাদেশকে।

যার নেতৃত্বে দেশের ক্রিকেট হয়েছে আরও বেশি সমৃদ্ধ আর বেশি সাফল্যমণ্ডিত। আজ (৬ মার্চ) তো ছিল তারই একটি অধ্যায় শেষের দিন। আর যে কয়েন হাতে দেখা মিলবে না। বিদায় হে ক্যাপ্টেন।

দীর্ঘ এই পথ পরিক্রমায় দলনেতার আসনে থেকে অনেক অর্জন ঝুলিতে পুরেছেন। বিশেষ করে একদিনের ক্রিকেটের কথাই যদি বলি, সেই ২০১০ সাল।

৫০ ওভারের ফরম্যাটে সে বার অভিষেক হয়েছিল এই মাশরাফির। এরপর থেকে অদ্যাবধি বাংলাদেশকে মোট ৮৮ ওয়ানডেতে নেতৃত্ব দিয়েছেন। এই ৮৮ ম্যাচে মাশরাফির দল জিতেছে ৫০ ম্যাচ, হেরেছে ৩৬টি। বাকি দুই ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়েছে।

ওয়ানডেতে বাংলাদেশকে এতো ম্যাচ জেতাতে পারেননি আর কোনো অধিনায়ক। দুই নম্বরে থাকা হাবিবুল বাশার সুমনের নেতৃত্বে ৬৯ ম্যাচ খেলে বাংলাদেশ জিতেছে ২৯টিতে।

আর জয়ের শতকরা হার, সর্বোচ্চ ম্যাচ খেলার রেকর্ডেও অন্য অধিনায়কদের চেয়ে এগিয়ে মাশরাফি। আন্তর্জাতিক ওয়ানডেতে অধিনায়ক হিসেবে ৮৮ ম্যাচ খেলে ১০২ উইকেট নিয়েছেন মাশরাফি। রান করেছেন ৫৭৮।