টি ব্যাগের চায়ে যখন রং!

53
Print Friendly, PDF & Email

আদিত্য শাহীন, ফেসবুক পোষ্ট:
টি ব্যাগের রং চা’য়ে রং মেশানো নিয়ে গতকাল বিকেলে লেখক তার ফেসবুকে জনস্বার্থ নিয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ পোষ্ট দিয়েছে। অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ সে স্ট্যাসে এখন অব্দি ১৮৩টি প্রতিক্রিয়া, ৩১ জনের মন্তব্য এবং ৪ জন শেয়ার করেছেন।

আলোচিত সেই পোস্টটি নিউজবিটোয়েন্টিফোর ডটকমের পাঠকদের জন্য জনস্বার্থে হুবহু তুলে ধরা হলো:

আমি ইদানিং রং চা ভালোবাসছি। চকচকে কাঁচের পেয়ালায় স্ফটিক জলে টি ব্যাগ ডুবিয়ে দিতেই ঘটে যায় প্রেম। অদ্ভুত রং ছেড়ে দেয়। কুঁচি আদা কিংবা লেবু চিপে দুয়েক টুকরো ছেড়ে দিলে স্বাদ হয়তো বাড়ে। স্বচ্ছ রঙিন প্রেম আর থাকে না। পানি ঘোলা হয়ে যায়।

সেদিন এক চাঅলা ভাইকে বললাম, টি ব্যাগ হবে? বললেন, না। ডাইরেক্ট লিকার খান। টি ব্যাগে ক্ষতি।

নতুন কথা। বলে কি! গুঁড়া ও দানা চায়ের অনেক দুর্নাম শুনেছি। সেগুলো নাকি আজিমপুরের চা! সেগুলো নাকি কফিনের চা! আমি অবশ্য বিশ্বাস করি না।
তো চাঅলাকে বললাম, কিসের ক্ষতি? টি ব্যাগই তো ভালো। তিনি বললেন, সঅব রং। রং ছাড়া কিছু না। আপনারা রং চা খান না, রং খান।

তার হাতের তিতা মার্কা ডাইরেক্ট লিকার অর্ধেক খেয়ে অর্ধেক ফেলে চলে এলাম।

রং চা খাচ্ছি। মাঝে মাঝে ওই চাঅলার কথাও ভাবছি। এক টি কোম্পানীর ম্যানেজারকে ফোন দিয়ে বিষয়টি পরিস্কার হতে চাইলাম। তিনি আমার স্কুলের বড় ভাই। বললেন, ‘আমাদের কোম্পানির অমুক ব্রাণ্ডটা নিলে তুমি হাণ্ড্রেড পার্সেন্ট কোয়ালিটি পেতে পারো।’ অন্য কোম্পানির কথা বলতে পারিনা। বুঝতেই তো পারো!

আমার খুব বেশি কিছু জানার ছিল না। শুধু জানতে চাইলাম, টি ব্যাগে কি রং দেয়া হয়? তিনি বললেন, অমরা দিই না। অন্যরা দিলে দিতে পারে। বললাম, অন্তত. একটি বিজ্ঞান বলুন, যেটি দিয়ে ধরা পড়বে রঙ দেয়া চা। বললেন, ঠাণ্ডা পানিতে চা গুড়া, দানা বা টি ব্যাগ দিলে যদি রং ছাড়ে, তাহলে বুঝে নিতে হবে রং দেয়া আছে।

ব্যাপারটি সাংঘাতিক। আমার সহকর্মী বন্ধু বললেন, এটি কোনো যুক্তি নয়। সব চা-ই ঠাণ্ডা পানিতে দিলে রং ছাড়বে। আমি একগুয়ে হয়ে বললাম, চা ভালো হলে ঠাণ্ডা পানিতে রং ছাড়বে না। ঠাণ্ডা পানিতে লিকার ছাড়লে, কেউ কেউ অসেদ্ধ ঠাণ্ডা পানির চা’কে ভালোবাসতো।

গত কয়েকদিন ধরে বিভিন্ন কোম্পানীর চায়ের লিকারের রং দেখার চেষ্টা করছি। একেক কোম্পানীর টি ব্যাগ একেক রকম রং ছাড়ে। কারোটা লাল চা, মানে একেবারে টকটকা লাল চা, কারোটা কমলাটে লালচা, কোনটা গাঢ় খয়েরি লাল চা, কোনোটি কালচে খয়েরি লাল চা। একই চা পাতা। তাহলে এতরকম রং হয় কীভাবে? চায়ের লিকারের আসল রংটা কি? কারো কাছে সোনালী, কারো কাছে সবুজাভ, কারো কাছে হলদেটে লাল। এখন আর বুঝতে পারছি না কিছুই। স্বচ্ছ জলে টি ব্যাগ ডুবিয়ে যে রং পাই, তাতেই সই। গরম জল হয়ে ওঠে অন্যরকম সুধা ! রং খাই, না ঢং খাই – খোদা মালুম।

বাজারে লেমন টি, অরেঞ্জ টি, গ্রিন টি, তুলসি টি সবই আছে। রংও আকর্ষনীয়।

উপকার না হোক, ক্ষতি হচ্ছে না তো! রং যদি দেয়াই হয়, তা কি খাদ্য উপযোগী? ফুড গ্রেড?

লেখক, সিনিয়র বার্তা সম্পাদক, চ্যানেল আই।