স্পিকারের ভারত সফর স্থগিতে যা বললো ভারতীয় গণমাধ্যম

32
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ করসপন্ডেন্ট, ঢাকা:
জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর পূর্বনির্ধারিত ভারত সফর স্থগিত করা হয়েছে। মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে ব্যস্ততার কারণে এ সফর পারছেন না বলে জানান স্পিকার। তবে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম বলছে, দিল্লির সহিংসতাই সফর স্থগিতের কারণ।

গতকাল রোববার (১ মার্চ) এই সফর স্থগিত করা হয়। ভারতের লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লার আমন্ত্রণে আজ সোমবার (২ মার্চ) স্পিকারের ভারত যাওয়ার কথা ছিল। মার্চের পর এই সফরসূচি পুনর্নির্ধারণ করা হবে বলে জানান শিরীন শারমিন চৌধুরী।

স্পিকার গণমাধ্যমকে বলেন, আগামী ১৭ মার্চ মুজিব শতবর্ষের অনুষ্ঠান শুরু হচ্ছে। তিনি মুজিববর্ষের অনুষ্ঠানে বিশেষ দায়িত্বে থাকায় ভারত সফরে যেতে পারছেন না।

মুজিব শতবর্ষে তার দায়িত্ব পূর্বনির্ধারিত ছিল না জানিয়ে স্পিকার বলেন, সম্প্রতি এই দায়িত্বগুলো তার ওপর এসেছে।

মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে বিদেশি অতিথিদের আমন্ত্রণ জানানো ও নিশ্চিত করা, ২২-২৩ মার্চ জাতীয় সংসদের বিশেষ অধিবেশন, ২৬ মার্চের অনুষ্ঠান- এসব ব্যস্ততার কারণে তিনি আপাতত ভারত সফরে যেতে পারছেন না বলে জানান স্পিকার।

তবে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এই সময়ের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘সূত্রের খবর, দিল্লি সহিংসতার কারণেই বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের স্পিকারের এই সফর বাতিল হয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীকে ‘মুজিববর্ষ’ হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। ২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে ২০২১ সালের ২৬ মার্চ পর্যন্ত এই বর্ষ উদ্‌যাপন করা হবে। মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে আয়োজিত নানা অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার জন্য বাংলাদেশের বিদেশ মন্ত্রকের তরফে ইতোমধ্যেই লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লা, প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়সহ ভারতীয় অতিথিদের কাছে আমন্ত্রণপত্র পাঠানো হয়েছে।

এই বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে আমন্ত্রণ জানাতে জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরিন শারমিন চৌধুরির নেতৃত্বে বাংলাদেশের ১৮ সদস্যের প্রতিনিধি দলের ২ মার্চ দিল্লি সফরের কথা ছিল। আগামী ৬ মার্চ পর্যন্ত তারা দিল্লিতে থাকবেন বলে প্রথমে স্থির হয়েছিল।

কিন্তু রোববার রাতে হঠাৎ সেই সফর বাতিল করা হয়। পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে পরবর্তী পদক্ষেপ করা হবে বলে জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের শীর্ষ এক কর্তা জানিয়েছেন। মুজিববর্ষের অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ঢাকা সফরকে সামনে রেখে দু’দিনের সফরে সোমবার ঢাকায় পা রাখেন ভারতের বিদেশ সচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলা। তার আগে বাংলাদেশের প্রতিনিধিদলের প্রস্তাবিত দিল্লির সফর বাতিলের ঘটনা বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। মোদীর সম্ভাব্য ঢাকা সফর প্রসঙ্গে আওয়ামি লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য তথা ১৪ দলের জোটের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, ‘ভারতের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক রক্তের ঋণ। ভারত আমাদের অকৃত্রিম বন্ধু। আমরা মনে করি মুজিববর্ষে নরেন্দ্র মোদী অবশ্যই বাংলাদেশে আসবেন।’