টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৮

13
Print Friendly, PDF & Email

কক্সবাজার থেকে করসপন্ডেন্ট:
কক্সবাজারের টেকনাফে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৭ জন নিহত হয়েছেন। এছাড়া, টেকনাফে আরেক জায়গায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে এক মাদককারবারি নিহত হয়েছেন।

সোমবার (২ মার্চ) ভোরে এ পৃথক বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। তাৎক্ষণিকভাবে নিহত ৭ জনের নাম-পরিচয় জানা যায়নি। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে বেশকিছু অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

র‌্যাব-১৫ কোম্পানি কমান্ডার মির্জা শাহেদ মাহতাব বলেন, ভোরে টেকনাফের জাদিমোড়া-মোছনি ২৬ ও ২৭ নম্বর ক্যাম্পের পাশে পাহাড়ে র‌্যাবের একটি দল মোছনি রোহিঙ্গ্যা ক্যাম্পে ডাকাতবিরোধী অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন পাহাড়ে র‌্যাব সদস্যদের উপস্থিতি টের পেয়ে রোহিঙ্গা ডাকাত জকি গ্রুপের সদস্যরা তাদের লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। আত্মরক্ষার্থে র‌্যাবের সদস্যরাও পাল্টা গুলি ছোড়েন। এ সময় উভয়পক্ষের মধ্যে কয়েকঘণ্টা বন্দুকযুদ্ধ চলে। একপর্যায় পরিস্থিতি শান্ত হলে র‌্যাব সদস্যরা ঘটনাস্থলে তল্লাশি চালিয়ে সাত জনের মরদেহ উদ্ধার করেন।

এছাড়া, কক্সবাজারের টেকনাফের জাদিমোড়া এলাকায় বিজিবি সদস্যদের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ অজ্ঞাতপরিচয় এক মাদককারবারি নিহত হয়েছেন। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে দেড় লাখ পিস ইয়াবা, একটি দেশীয় তৈরি অস্ত্র ও দুই রাউন্ড তাজা কার্তুজ উদ্ধার করা হয়।

বিজিবির দাবি, এ ঘটনায় তাদের তিন সদস্য আহত হয়েছেন।

টেকনাফ বিজিবি-২ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফয়সাল হাসান খান জানান, ভোরে বিজিবির নয়াপাড়া বিওপির বিশেষ একটি টহল দল মাদকের চালান আসার খবর পেয়ে জাদিমোড়া খাল সংলগ্ন পয়েন্টে অবস্থান নেয়। এর কিছুক্ষণ পর কয়েকজন মাদককারবারি নৌকায় করে নাফনদী পার হয়ে এ খাল পাড়ে আসেন। এ সময় বিজিবির সদস্যরা তাদের থামতে বলেন। এ সময় তারা বিজিবি সদস্যদের লক্ষ্য করে গুলি ছুড়ে আত্মরক্ষার্তে বিজিবি সদস্যরাও পাল্টা গুলি ছুড়ে। এক পর্যায়ে পরিস্থিতি শান্ত হলে ঘটনাস্থলে তল্লাশি চালিয়ে দেড় লাখ পিস ইয়াবা ও একটি দেশিয় তৈরি অস্ত্র এবং দুই রাউন্ড তাজা কার্তুজসহ গুলিবিদ্ধ অজ্ঞাতপরিচয় এক ব্যক্তিকে উদ্ধার করা হয়।

তিনি বলেন, গুলিবিদ্ধ আহত ওই ব্যক্তিকে চিকিৎসার জন্য প্রথমে টেকনাফ উপজেলা সদর হাসপাতালে পরে সেখান থেকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

মরদেহ কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে বলে বিজিবির অধিনায়ক ফয়সাল।