বোন-মেয়েকে নিয়ে বাবার প্রতিকৃতির সামনে প্রধানমন্ত্রীর সেলফি (ভিডিও)

26
Print Friendly, PDF & Email

সিনিয়র করসপন্ডেন্ট, ঢাকা:
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতির সামনে দাঁড়িয়ে ছোট বোন শেখ রেহানা ও কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুলকে সঙ্গে নিয়ে সেলফি তুলছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনজনের হাসিমুখ, পোশাক, চারপাশের আলো আর পেছনে বঙ্গবন্ধুর হাস্যোজ্জ্বল ছবি যেন এক মায়াময় আবহ তৈরি করেছে।

শুক্রবার (২১ ফেব্রুয়ারি) বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত চিত্রপ্রদর্শনী পরিদর্শনের ফাঁকে বঙ্গবন্ধুকন্যা এ সেলফি তোলেন। শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালায় ‘লাইটিং দ্য ফায়ার অব ফ্রিডম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’ শিরোনামে এ প্রদর্শনী চলছে।

তাদের হাস্যোজ্জ্বল এই সেলফি তোলার মুহূর্ত ফ্রেমবন্দি করেন এবিএম আখতারুজ্জামান। দারুণ এই ছবিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট হতেই ছড়িয়ে পড়ে দ্রুতগতিতে। অনেকেই ছবিটি নিজের টাইমলাইনে পোস্ট করে মুগ্ধতা প্রকাশ করেছেন। কেউ বা শ্রদ্ধা-ভালোবাসা জানিয়েছেন।

আওয়ামী লীগের গবেষণা উইং সিআরআইয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, প্রদর্শনী দেখার সময় চিত্রকর্মগুলো নিয়ে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী রবীন্দ্র সঙ্গীত নিষিদ্ধ করার পর সে সময় পত্রিকায় প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন প্রদর্শনীতে দেখে সরাসরি আন্দোলনে অংশ নেয়ার স্মৃতিচারণ করেন তিনি।

শেখ হাসিনা জানান, তাদের আন্দোলন অংশ নেয়ার ছবি পত্রিকায় প্রকাশিত হলে কয়েক দিন বাসা থেকে বের হতে দিতেন না মা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব।

প্রদর্শনীতে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের ভিডিও দেখানো হচ্ছে। সেখানে এসে অনেকটা আবেগ প্রবণ হয়ে পড়েন বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা। একে অপরের হাত ধরে সম্পূর্ণ ভাষণ শোনেন তারা।

সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন-সিআরআইয়ের সহযোগিতায় গত ৭ থেকে ১৫ ফেব্রুয়ারি সিসমিক মুভমেন্ট নিয়ে শিল্পকলা একাডেমিতে আয়োজন করা হয় ঢাকা আর্ট সামিট।

‘মুজিববর্ষের’ অংশ হিসেবে এই আয়োজনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে রাখা হয় বিশেষ প্রদর্শনী ‘লাইটিং দি ফায়ার অব ফ্রিডম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’।

ঢাকা আর্ট সামিট শেষ হয়ে গেলেও মুজিব বর্ষ উপলক্ষে আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে সবার জন্য উন্মুক্ত থাকছে ‘লাইটিং দি ফায়ার অব ফ্রিডম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’ প্রদর্শনীর কার্যক্রম।