নগরপিতা হলে তাপস যা করতে চান

13
Print Friendly, PDF & Email

সিনিয়র করসপন্ডেন্ট, ঢাকা:
ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন-ডিএসসিসির আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়রপ্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস নগরবাসীর জন্য বেশকিছু ভবিষ্যত পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন।

তিনি বলেছেন, নগরপিতা নির্বাচিত হলে মেয়াদের পাঁচ বছরের প্রতিটাদিন নগরবাসীর পেছনে ব্যয় করবেন। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন তথা নগরভবনকে ‘দুর্নীতিমুক্ত’ করবেন।

রোববার (৫ জানুয়ারি) রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে নির্বাচনী পরিচালনা কমিটির সভায় তিনি এসব পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন। এ সময় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মুকুল বোস, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আবদুর রাজ্জাক, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিমসহ আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

তাপস জানান, ১০ জানুয়ারি (শুক্রবার) জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্যদিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে তিনি তার নির্বাচনি প্রচারণা শুরু করবেন।

বিভিন্ন পরিকল্পনা তুলে ধরে শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, প্রত্যেকটা ওয়ার্ডে খেলাধুলার ব্যবস্থা থাকবে। ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলা হবে। বুড়িগঙ্গা এবং শীতলক্ষ্যার পাড়ে ছয় লেনের সড়ক করে দেবেন তিনি। ফিরিয়ে আনা হবে পঞ্চায়েত ব্যবস্থা।

নগর ভবনকে দুর্নীতিমুক্ত প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলে চান শেখ ফজলে নূর তাপস। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, নগরভবনকে দুর্নীতিমুক্ত করে মানুষের মৌলিক সুবিধা পূরণ করা হবে। ৯০ দিনের মধ্যে মৌলিক সুবিধাগুলো জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়া হবে।

শেখ তাপস বলেন, মেয়র নির্বাচিত হলে শেখ হাসিনার উন্নত রাজধানী এবং উন্নত ঢাকা গড়তে চাই। ২০০৭ সালে সেনাসমর্থিত সরকার আমাদের প্রাণপ্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করে জেলে রেখেছিলেন ১১ মাস। তারপর ২০০৮ সালের নির্বাচনে শেখ হাসিনা আমাকে ধানমন্ডি- ১০ আসন থেকে মনোনয়ন দেন। তখন বলেছিলাম, সুখে-দুঃখে আপনাদের পাশে থাকবো। গত তিন টার্মে আমার নির্বাচনী এলাকায় আমি ব্যাপক উন্নয়ন করেছি।

তিনি বলেন, আমি মনে-প্রাণে বিশ্বাস করি ২০৪১ সালে বাংলাদেশকে একটি উন্নত দেশে পরিণত করতে হলে দেশের রাজধানী ঢাকাকেই উন্নত এবং যোগ্য করে গড়ে তুলতে হবে। আর সেটা এখনই শুরু করতে হবে। অনেক সময় চলে গেছে। ঢাকাকে উন্নত করার জন্যই দল আমাকে মনোনয়ন দিয়েছে। এটা আমার জন্য বিশাল চ্যালেঞ্জের।

তিনি বলেন, ঢাকা দু’টা নদীর অববাহিকায় কিন্তু সেগুলো অবহেলায় অযত্নে পড়ে আছে। আমাদের ঐতিহ্য ঢাকাকে পুনরুদ্ধার করা হবে। ঢাকাকে বিশ্ববাসীর কাছে মর্যাদার সাথে তুলে ধরা হবে।