আতিকুলকে শোকজ পাঠানোর নির্দেশ ইসির

23
Print Friendly, PDF & Email

সিনিয়র করসপন্ডেন্ট, ঢাকা:
নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘন করায় আসন্ন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলামকে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠানোর জন্য রিটার্নিং কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

রবিবার নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম আগারগাঁওয়ে তার কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল আতিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরণ বিধি ভঙ্গের অভিযোগ করলে কী ব্যবস্থা নিয়েছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘রিটার্নিং কর্মকর্তাকে বলেছি, যেন তাকে শোকজ করা হয়, যেন তার কাছে জানতে চাওয়া হয়, কেন এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে, কেন তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে না।’

প্রার্থীদের আচরণ বিধি ভঙ্গের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘যদি কেউ প্রার্থী হয় তাহলে নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘন হয়। এখন পর্যন্ত প্রার্থী কেউ হয়নি। প্রার্থী হবে যেদিন প্রতীক বরাদ্দ হবে। সেদিন থেকে আমরা প্রার্থীর ওপর প্রযোজ্য করতে পারব। রিটার্নিং কর্মকর্তাকে বলব, যেই হোক না কেন আইন লঙ্ঘন করলে যেন ব্যবস্থা নেয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘আচরণ বিধিতে যে অংশটুকু প্রার্থীর জন্য প্রযোজ্য, সে অংশটুকু প্রার্থী হওয়ার পর প্রয়োগ করা যাবে। আর প্রার্থী হওয়ার আগে আচরণ বিধি যে অংশটুকু সেটা মূলত রাজনৈতিক দলগুলোর জন্য প্রতিপালনীয়। কারণ তারা মনোনয়ন দিয়ে দিয়েছে। সে বিষয়ে আইনে যা কিছু আছে, ওই অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য রিটার্নিং কর্মকর্তাকে অবশ্যই বলব। এছাড়া মিছিল করা, রাস্তা বন্ধ করে কোনো প্রচার শুরু করলে, রিটার্নিং কর্মকর্তাকে বলব তার বিরুদ্ধে খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য।’

উত্তরা ৪ নম্বর সেক্টরের ৯ নম্বর রোডে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আতিকুল ইসলামের নির্বাচনী ক্যাম্প উদ্বোধন, মোটরসাইকেল র‌্যালি, নেতাকর্মীদের স্লোগান এবং সংসদ সদস্য (এমপি) ক্যাম্প উদ্বোধন করতে পারে কিনা, আইন কি বলে এমন প্রশ্নের জবাবে নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আইনে আমরা তাকে বিরত থাকার জন্য বলব। যদি বিরত না থাকে আমরা শোকজ করব।’

উত্তরায় আতিকুল ইসলামের নির্বাচনী ক্যাম্পটি রবিবার সকালে উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাংসদ অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন।

রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘এমপি ক্যাম্প উদ্বোধন করতে পারেন কিনা- এখানে কিন্তু একটা বিষয় আছে, আচরণ বিধিতে অবশ্যই সংসদ সদস্যরা আমাদের স্থানীয় সরকার নির্বাচনের প্রচারণায় অংশ নিতে পারে না। এখানে কিন্তু আইনের একটা ফাঁক আছে। প্রচারণায় অংশ নিতে পারে না কিন্তু এটা প্রচারণার (ক্যাম্প উদ্বোধন) মধ্যে পড়বে কিনা, এটা বসে দেখতে হবে। প্রচারণায় অংশ নিতে পারবে না।’

কাউন্সিলর প্রার্থীকে পুলিশ হয়রানি করছে বিএনপির অভিযোগের ভিত্তিতে কী ব্যবস্থা নিয়েছেন, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘পুলিশের কাছে অনুরোধ জানাব যেন কোনো প্রার্থী, ভোটার , কাউকেই যেন অহেতুক হয়রানি না করা হয়। এখানে একটা ব্যাপার আছে। কোনো প্রার্থী যদি ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি হয়, কোনো আদালত যদি ওয়ারেন্ট জারি করেন এবং জারিকৃত ওয়ারেন্টটা বাস্তবায়ন করতে কিন্তু পুলিশ বাধ্য। আপনারা বলতে পারেন-আগে কেন করেনি। এটা বলতে পারব না। এখন হয়তো পেয়েছে তাই করেছে। আমি খোঁজ নিয়েছি, তার বিরুদ্ধে পরোয়ানা আছে। আমরা যদি গ্রেফতার না করার জন্য বলি, তাহলে কিন্তু সরাসরি আদালত অবমাননা হয়ে যায়। এটা কিন্তু নির্বাচন কমিশন কিংবা কেউ করতে পারে না। করা উচিতও নয়।’

আতিকুলকে শোকজের বিষয়ে জানতে চাইলে উত্তর সিটি করপোরেশনের রিটার্নিং কর্মকর্তা আবুল কাসেম গণমাধ্যমকে বলেন, ‘মেয়রপ্রার্থী আতিকুলকে শোকজের বিষয়ে কোনো নির্দেশনা এখনো পাইনি। আমার কাছে কমিশন থেকে এ সংক্রান্ত কোনো নোটিশও আসেনি।’