প্রতিটি আন্দোলনে ছাত্রলীগের অবদান ছিল: প্রধানমন্ত্রী

7
Print Friendly, PDF & Email

সিনিয়র করসপন্ডেন্ট, ঢাকা:
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের প্রতিটি আন্দোলন-সংগ্রামেই ছাত্রলীগের অবদান ছিল। ছাত্রলীগ করতে হলে অবশ্যই বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী পড়তে হবে। এখানে ইতিহাসের অজানা তথ্য আছে।

শনিবার (৪ জানুয়ারি) বিকেলে রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান উদ্বোধনের পর প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৫৮ সালে মার্শাল ল দেয়া হলো। তখন রাজনীতি নিষিদ্ধ ছিল। বঙ্গবন্ধু কারাগারে থেকেই চিন্তা করলেন এ থেকে পরিত্রাণ পেতে হবে। তিনি ৬০ সালে মুক্তি পান। কিন্তু সব নিষিদ্ধ ছিল। তখন থেকে তিনি ছাত্রলীগকে সংগঠিত করেন। সারা দেশে নিউক্লিয়াস সেল করে মানুষের মাঝে উদ্দীপনা জাগানোর চেষ্টা করেন।

তিনি বলেন, বাঙালির অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য ছিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের। প্রতি মুহূর্তে তিনি বাংলাদেশের মানুষকে নিয়ে ভাবতেন। বেশিরভাগ সময় তিনি কারাগারে থাকতেন। সেখানে গিয়ে সব সময় তার সঙ্গে দেখা করতে হয়েছে।

বাংলাদেশের বিভিন্ন গণতান্ত্রিক আন্দোলন ও সংগ্রামে বলিষ্ঠ নেতৃত্ব দানকারী ঐতিহ্যবাহী ছাত্রসংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী শনিবার (৪ জানুয়ারি)। বাংলা, বাঙালির স্বাধিকার অর্জনের লক্ষ্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশনায় ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের জন্ম হয়।