নতুন বছরে কক্সবাজারে পর্যটকদের ঢল

12
Print Friendly, PDF & Email

কক্সবাজার থেকে করসপন্ডেন্ট:
সমুদ্র সৈকত ছাড়া কোনো বিনোদনের সুযোগ-সুবিধা না থাকায় বছরের প্রথম দিনের আনন্দ উপভোগে কক্সবাজারে ঢল নেমেছে পর্যটকদের। তাদের আশা, নতুন বছর বয়ে আনবে সুখ, সমৃদ্ধ ও সাফল্য। আর পর্যটন ব্যবসায়ীদের প্রত্যাশা, গত বছরের মতো নতুন বছরেও আবহাওয়া এবং রাজনৈতিক পরিবেশ থাকবে পর্যটকদের অনুকূলে।

বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার। কে না চায় নতুন বছরের প্রথম দিনটি সৈকতে কাটাতে। তাই বছরের প্রথম দিনটি উপভোগ করতেই সৈকতে এখন লাখো পর্যটক।

শীতের সকাল, নতুন বছর ২০২০ সালের প্রথম দিন। তাই বিশাল সমুদ্র দেখতে দলে দলে সাগর তীরে নামেন পর্যটকরা। তবে নতুন বছরের সূর্য দেরিতে দেখা মিললেও তা নিয়ে হতাশা নেই পর্যটকদের। আর সাগর তীর দাঁড়িয়ে পর্যটকদের প্রত্যাশা সুখ, সমৃদ্ধ ও সাফল্যময় হবে নতুন বছর ২০২০।

সাধারণ মানুষ জানান, নতুন বছরকে উদযাপন করতে কক্সবাজার এসেছি। এখানে খুবই ভালো লাগছে।

অন্য আরো এক পর্যটক জানান, নতুন বছরে ব্যবসায় বাণিজ্য ভালো হয়। এটাই চাই। সেই সাথে রাজনৈতিক হানাহানি যাতে না হয়। আর জীবনে নতুনত্ব কিছু আসুক।

গেল বছর আবহাওয়া এবং রাজনৈতিক পরিবেশ ছিলো পর্যটকদের অনুকূলে, তাই তুলনামূলক কক্সবাজারে বেড়েছে পর্যটকও। নতুন বছরেও এই অবস্থা অব্যাহত থাকবে এমনটাই আশা সৈকতের ব্যবসায়ীদের।

ব্যবসায়ীরা জানান, গত বছরের মতো এই বছরে যেনও রাজনৈতিক দ্বন্দ্বমুক্ত থাকে। এখানে অনেক পর্যটক আসুক। এটাই কামনা করি।

আর নতুন বছরে কক্সবাজার সুন্দর, পরিকল্পিত এবং পর্যটনবান্ধব হবে সৈকত শহর এমন প্রত্যাশা করেছেন কক্সবাজার হোটেল মালিক সমিতির মুখপাত্র আবু তালেব শাহ।

তিনি বলেন, এখানে দেশি-বিদেশি পর্যটকদের সমাগম ঘটবে এই প্রত্যাশা করি। সেই সাথে সরকারের কাছে আমাদের যে চাহিদা সেগুলো যেন পূরণ হয়।

২০১৯ সালে কক্সবাজারে পর্যটকের আগমন হয় ১৫ লাখের বেশি।