‘বড় ভাই’ বুলবুলের শরণাপন্ন আশরাফুল

10
Print Friendly, PDF & Email

স্পোর্টস করসপন্ডেন্ট, ঢাকাঃ
তিনি বিপিএলে নেই, কিন্তু এবার জাতীয় লিগে ভালো খেলেছিলেন। মাঠে ফেরার তাড়াটা এখনও আছে। সেই তাড়া থেকেই নিয়মিত অনুশীলন চালিয়ে যাচ্ছেন মোহাম্মদ আশরাফুল। সামনে ফেব্রুয়ারিতে প্রিমিয়ার লিগ এবং তার পরপরই বিসিএল, সেখানে ভালো করার লক্ষ্যে কঠোর পরিশ্রম করছেন জাতীয় দলের এক সময়ের বড় তারকা।

এরই মধ্যে হঠাৎ কানে আসলো, তার অগ্রজ আমিনুল ইসলাম বুলবুল এখন ঢাকায়। কাল বিলম্ব না করে বুলবুলের কাছে ফোন আশরাফুলের, ‘বুলবুল ভাই, আমার ব্যাটিংয়ে কিছু সমস্যা হচ্ছে। ঠিক করে দেবেন?’

দেশের ক্রিকেটের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরিয়ান আমিনুল ইসলাম বুলবুল ঢাকায় এসেছেন এক সপ্তাহ হলো। তবে ক্রিকেটটা এখন আর আগের মতো টানে না তাকে। অস্ট্রেলিয়ায় কদর পাচ্ছেন, অথচ দেশের ক্রিকেটে তার মূল্যায়ন হয়নি। অভিমান থেকেই যেন গত এক সপ্তাহে শেরে বাংলায় একবারের ঢুঁ মারেননি। অথচ গিয়েছেন ফুটবল ম্যাচ দেখতে।

তবে শেরে বাংলায় ক্রিকেট দেখতে না গেলেও দেশের ক্রিকেটের প্রতি, ক্রিকেটারদের প্রতি মমত্ববোধটা আগের মতোই আছে বুলবুলের। তাই তো অনুজপ্রতিম মোহাম্মদ আশরাফুলের অনুরোধ উপেক্ষা করতে পারেননি।

সাংবাদিকদের বুলবুল জানালেন, ‘এর মধ্যে একদিন মিরপুর সিটি ক্লাব মাঠে গিয়েছিলাম। সেটা ছোট ভাই আশরাফুলের (জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক) অনুরোধে। আশরাফুল একদিন ফোন করে বললো-বুলবুল ভাই, ব্যাটিংয়ে একটু সমস্যা হচ্ছে, যদি একটু দেখিয়ে দিতেন!’

‘ছোট ভাই’য়ের এমন অনুরোধ শুনে পরদিনই সময় করে বুলবুল ছুটে যান মিরপুর সিটি ক্লাব মাঠে। সেখানে আশরাফুলের সমস্যা নিয়ে কথা বলেন। হাতে কলমে কিছু করণীয় কাজ দেখিয়েও দেন।

এ ব্যাপারে আশরাফুলের সাথে যোগাযোগ করা হলে দেশের ক্রিকেটের সব সময়ের অন্যতম সেরা ব্যাটিং প্রতিভা জানান, ‘হ্যাঁ, নিজের ব্যাটিং নিয়ে কাজ করতে করতে মনে হলো বুলবুল ভাই যখন দেশে এসেছেন, তার কাছে যাই। তার টিপস নেই।’

নন্দিত-নিন্দিত আশরাফুল মধ্য তিরিশে দাঁড়িয়ে এখনো বুলবুলের শরণাপন্ন হতে পারেন। তার কাছ থেকে ব্যাটিং টিপস নেয়ার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন। কিন্তু সেই বুলবুল দেশের ক্রিকেটে অবমূল্যায়িত। তাকে ব্যবহার করার কোনই উদ্যোগ নেই। জাতীয় দল না হোক, হাই পারফরম্যান্স ইউনিটের ব্যাটিং উপদেষ্টা হিসেবেও তাকে নিয়োগ দেয়ার চিন্তা করা যেতে পারতো। কিন্তু কেন যেন সে উদ্যোগ নেই বিসিবির।

অথচ আমিনুল ইসলাম বুলবুল এখন বেশ ভালো মানের কোচ হিসেবে বিদেশে সমাদৃত। তারপরও তার মনের আক্ষেপটা রয়েই গেছে। ঘরের ছেলে তো ঘরের কদর পেতে চাইবেনই। সেটা আর হচ্ছে কই?