এক ম্যাচ আগেই সিরিজ নিশ্চিত করল অস্ট্রেলিয়া

8
Print Friendly, PDF & Email

স্পোর্টস ডেস্ক রিপোর্টঃ
বোলারদের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে বক্সিং ডে টেস্টে নিউজিল্যান্ডকে বড় ব্যবধানে হারিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। ৩২ বছর পর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বক্সিং ডে খেলতে এসে ২৪৭ রানের বড় হারের স্বাদ নিতে হয়েছে কেন উইলিয়ামসনের দলকে। এই ম্যাচ জিতে তিন ম্যাচের সিরিজ এক ম্যাচ বাকি থাকতেই ২-০ তে জিতে নিয়েছে স্বাগতিকরা।

অজি বোলারদের সামনে নিউজিল্যান্ডের হয়ে একাই লড়েছেন টম ব্লান্ডেল। তুলে নিয়েছিলেন ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি। কিন্তু তাঁর একার লড়াইয়ে ম্যাচটি ম্যাচটি জিততে পারেনি নিউজিল্যান্ড। এমনকি পঞ্চম দিন পর্যন্তও ম্যাচটি নিতে পারেনি সফরকারীরা। চতুর্থ দিনের শেষ সেশনেই অলআউট হয়েছে তাঁরা। প্রথম ইনিংসে কিউই ব্যাটসম্যানরা অজি পেসার দ্বারা বিধ্বস্ত হলেও পরের ইনিংসে রাজত্ব করেছেন নাথান লায়ন। তিনি একাই নিয়েছেন চার উইকেট।

ম্যাচটির ভাগ্য অনেকটাই নির্ধারণ হয়ে গিয়েছিল দুই দলের প্রথম ইনিংস শেষে। মেলবোর্নে আগে ব্যাটিংয়ের সুযোগ পেয়ে প্রথম ইনিংসে ৪৬৭ রান করেছিল অস্ট্রেলিয়া। এরপর নিউজিল্যান্ডকে প্রথম ইনিংসে ১৪৮ রানেই গুঁড়িয়ে দেয় প্যাট কামিন্স, মিচেল স্টার্ক, জেমস প্যাটিনসনরা।

প্রথম ইনিংসেই ৩১৯ রানের লিড পেয়ে যায় স্বাগতিকরা। জয়ের স্তম্ভ এখানেই গড়ে নেয় তারা। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে ১৬৮ রানে ইনিংস ঘোষণা করে দিয়ে নিউজিল্যান্ডের সামনে ৪৮৮ রানের বিশাল লক্ষ্য ছুঁড়ে দেয় স্বাগতিকরা।

চতুর্থ দিনেও প্রথম সেশনে ১০ ওভার ব্যাটিং করে নিউজিল্যান্ডকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় অস্ট্রেলিয়া। ইনিংসের শুরুতেই ওপেনার টম লাথামের উইকেট নিয়ে অজি শিবিরে স্বস্তি এনে দেন প্যাটিনসন। মাত্র ৮ রানেই ফেরেন লাথাম। অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন দ্বিতীয় ইনিংসেও ব্যাট হাতে ছিলেন ব্যর্থ। প্রথম ইনিংসে ৯ রান করলেও দ্বিতীয় ইনিংসে আউট হয়েছেন রানের খাতা খোলার আগেই।

অভিজ্ঞ রস টেলরও ছিলেন ব্যর্থ। আউট হয়েছেন ২ রানে। প্যাটিনসনের এক ওভারেই ফিরেছেন দলের অন্যতম অভিজ্ঞ এই দুই ব্যাটসম্যান। সতীর্থদের আসা-যাওয়ার মাঝে একপ্রান্ত আগলে রাখেন ওপেনার টম ব্লান্ডেল। তাঁকে কিছুক্ষণ সঙ্গ দেন হেনরি নিকোলস। ৫৩ রানের জুটি গড়েন তাঁরা দুইজন। এই জুটি ভাঙেন স্পিনার নাথান লায়ন।

এরপরও নিজের ঘূর্ণি জাদু দেখাতে থাকেন লায়ন। ৩৩ রান করা নিকোলস ফেরার পর ব্লান্ডেলকে সঙ্গ দেন বিজে ওয়াটলিং। কিন্তু তাঁকেও বেশিক্ষণ টিকতে দেননি লায়ন। ২২ রানে এই ব্যাটসম্যানকে ফেরান তিনি। এরই মাঝে ১০৬ বলে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন ব্লান্ডেল। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে নামা কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমকে মাত্র ৯ রানে সাজঘরের পথ দেখান লায়ন।

দেখেশুনে ব্যাটিং করতে থাকেন নতুন ব্যাটসম্যান মিচেল স্যান্টনার। ব্লান্ডেলকে ভালোই সঙ্গ দিচ্ছিলেন তিনি। কিন্তু লায়নের স্পিনের সামনে নতিস্বীকার করতে হয়েছে তাঁকেও। ২৭ রান করে আউট হয়েছেন তিনি। ভুল বোঝাবুঝিতে রানআউট হয়ে ফিরেছেন টিম সাউদিও।

শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হয়েছেন ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ম্যাচেই সেঞ্চুরি তুলে নেয়া ব্লান্ডেল। ইনজুরিতে ছিটকে পড়েছিলেন ট্রেন্ট বোল্ট। যে কারণে ৯ উইকেট হারিয়ে ২৪০ রানে থামে কিউইরা।

দুর্দান্ত বোলিং করে চার উইকেট নিয়েছেন লায়ন। তিনটি উইকেট নামের পাশে যোগ করেছেন প্যাটিনসন। প্রথম ইনিংসে ৫ উইকেট নেয়া কামিন্স দ্বিতীয় ইনিংসে ছিলেন উইকেটশূন্য।  

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

অস্ট্রেলিয়া প্রথম ইনিংসঃ ১৫৫.১ ওভারে ৪৬৭/১০ (হেড ১১৪, স্মিথ ৮৫; ওয়েগনার ৪/৮৩, সাউদি ৩/১০৩)।

নিউজিল্যান্ড প্রথম ইনিংসঃ ৫৪.৫ ওভারে ১৪৮/১০ (লাথাম ৫০, ওয়েগনার ১৮; কামিন্স ৫/২৮, প্যাটিনসন ৩/৩৪)।

অস্ট্রেলিয়া দ্বিতীয় ইনিংসঃ ৫৪.২ ওভারে ১৬৮/৫ ডিঃ (ওয়ার্নার ৩৮, বার্নস ৩৫; ওয়েগনার ৩/৫০, স্যান্টনার ১/২২)।

নিউজিল্যান্ড দ্বিতীয় ইনিংসঃ ৭১ ওভারে ২৪০/১০ (ব্লান্ডেল ১২১, নিকোলস ৩৩; লায়ন ৪/৮১, প্যাটিনসন ৩/৩৫)।