‘খালি কলসী বাজে বেশি’ অবস্থা বিএনপি’র: তথ্যমন্ত্রী

11
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ করসপন্ডেন্ট, ঢাকা:
বিএনপি’র বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার ও সরকারবিরোধী ‘তুমুল’ আন্দোলনের ঘোষণাকে ‘খালি কলসী বাজে বেশি’ বলে আখ্যা দিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগের চতুর্থ ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি’র ‘তুমুল আন্দোলন’ আমরা দেখেছি। তাদের যত সমাবেশ, নিজেদের মধ্যে মারামারিও তত। নেতাদের ওপর কর্মীদের আস্থা নেই। যে নেতারা বোরখা পরে আদালতে জামিন নিতে যান, তাদের ওপর কর্মীদের আস্থা না থাকাই স্বাভাবিক। তাদের আন্দোলনের ডাক শুনে মনে হয় এ জন্যই বলে, খালি কলসী, বাজে বেশি।’

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান আরো বলেন,
‘খালেদা জিয়া রাজনৈতিক কোন বন্দী নন, যে তাকে আন্দোলন করে মুক্ত করা যাবে।’

‘বিএনপি’র আন্দোলন কার বিরুদ্ধে?’ প্রশ্ন রেখে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘দুর্নীতির দায়ে খালেদা জিয়াকে সাজা দিয়েছে আদালত। দন্ডপ্রাপ্ত আসামীকে মুক্ত করতে বিএনপির আন্দোলনের হুমকি আইন ও আদালত অবমাননার শামিল।’

গত বছরের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ তুলে ঐক্যফ্রন্ট আহুত সমাবেশ প্রসঙ্গে ‘ঐক্যফ্রন্টের মধ্যেই ঐক্য নেই এবং তারা তাদের নিভু নিভু প্রদীপ জ্বালিয়ে রাখতেই সমাবেশের ডাক দিয়েছে’, উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘ঐক্যফ্রন্ট গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়েছে। নির্বাচিতরা শপথ নিয়েছে, এমনকি মহিলা এমপি কোটাও তারা পূর্ণ করেছে। এমপি হিসেবে সংসদ থেকে সব সুযোগ-সুবিধা নিয়ে আবার সেই নির্বাচন নিয়ে প্রশ্ন তোলা তাদের নিজেদের সঙ্গেই প্রতারণার শামিল।’

বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার জাদুকরী নেতৃত্বে দেশ আজ জাতির পিতার স্বপ্নপূরণের পথে অদম্য গতিতে এগিয়ে চলছে, উল্লেখ করে ড. হাছান বলেন, ‘খাদ্য ঘাটতির দেশ থেকে খাদ্যরপ্তানীর দেশ, দুর্যোগে সাহায্যগ্রহীতা থেকে সাহায্য প্রদানকারী, গত এক দশকে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে বিশ্বের সর্বোচ্চ দেশে রূপান্তরিত হওয়া যারা সহ্য করতে পারে না, তারাই দেশের বিরূদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। এদের বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।’

আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন হিসেবে মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগকে স্বীকৃতি দেবার জন্য আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে অনুরোধ করবেন বলে সম্মেলনে প্রতিশ্রুতি দেন এবং তাদের কার্যক্রমের প্রশংসা করেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান।

আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগের সভাপতি এড. মো. অাসাদুজ্জামান দুর্জয়ের সভাপতিত্বে সম্মেলনে অাওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শাজাহান খান, উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য কাজী অাকরাম উদ্দিন আহমেদ, মোজাফফর হোসেন পল্টু, অাওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট বলরাম পোদ্দার, মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগ উপদেষ্টা সৈয়দা রোকেয়া বেগম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।