ঢাকার সিটি নির্বাচন সেনাবাহিনী থাকবে না, বিএনপিকে থাকার আহ্বান

13
Print Friendly, PDF & Email

সিনিয়র করসপন্ডেন্ট, ঢাকা:
আগামী ৩০ জানুয়ারি ভোটগ্রহণের দিন ধার্য রেখে ঢাকা উত্তর এবং দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। রোববার (২২ ডিসেম্বর) বিকেলে ইসি সচিবালয়ের মিডিয়া সেন্টারে তফসিল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা। দুই সিটির সব কেন্দ্রেই ইভিএমের মাধ্যমে ভোট অনুষ্ঠিত হবে এবং নির্বাচনে নিরাপত্তা রক্ষায় সেনাবাহিনী রাখা হবে না বলেও জানান তিনি।

এ সময় তিনি নিরপেক্ষ নির্বাচনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে বিএনপিকে ভোটে অংশ নেয়ার আহবান জানান।

ঢাকা উত্তর সিটি এবং দক্ষিণ করপোরেশন নির্বাচনের দিনক্ষণ ঠিক করতে রোববার দুপুরে বৈঠকে বসে নির্বাচন কমিশন। প্রায় দুই ঘণ্টার বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সামনে আসেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা।

তিনি বলেন, প্রতিযোগিতামূলক নির্বাচন হবে। এতে কোনো সন্দেহ নেই। সব দলই অংশগ্রহণ করুক, আমি বলবো, নিরপেক্ষভাবেই নির্বাচন হবে। তাদের নিরাপত্তার দায়িত্ব আমাদেরই। আমরা আহবান করবো তারা যেন ভোট কেন্দ্রে আসেন।

ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়পত্র দাখিলের শেষ দিন ৩১ ডিসেম্বর। যাচাই-বাছাই ২ জানুয়ারি। প্রত্যাহারের শেষ দিন ৯ জানুয়ারি।

সিইসি বলেন, নির্বাচনে কোনো সেনাবাহিনী থাকবে না। কিন্তু আমাদের আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা থাকবেন।

টেকনিক্যাল কাজের জন্য দুজন করে সেনাবাহিনীর কর্মী থাকবে। তাই সেনাবাহিনী একবারে নেই তো বলা যাবে না, আবার আছে তাও বলা যাবে না। তবে সেনাবাহিনী নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে না।