বিআরটিসির বাসে কেনো এত সমস্য?

10

স্পেশাল করসপন্ডেন্ট, ঢাকা:
রাষ্ট্রীয় পরিবহন সংস্থা বিআরটিসির বাস নিয়ে অভিযোগের শেষ নেই যাত্রীদের। তারা বলছেন, নতুন বাস কেনা হলেও ব্যবস্থাপনায় সমস্যার কারণে বেশি দিন টিকছে না গাড়ি। যেখানে সেখানে যাত্রী উঠানামা তো আছেই। অন্যদিকে পুলিশি হয়রানি, পর্যাপ্ত বাসস্টপেজ না থাকাসহ নানা সংকটের কথাও উঠে এসেছে সংস্থাটির গণশুনানিতে।

ভারত থেকে বিআরটিসির অনেকগুলো বাস কেনা হয়েছিলো বেশ ঘটা করেই। কিন্তু বেশিদিন চলেনি। শুধু ভারত থেকে কেনা বাসগুলো নয়, বিআরটিসির যে কোনো বাস কেনার পর কারিগরি সমস্যা দেখা দিলেই সেগুলো ঠিক করার বদলে ডিপোতে দিনের পর দিন পড়ে থেকে নষ্ট হয়। শনিবার (২১ ডিসেম্বর) মতিঝিল ডিপোতে বিআরটিসির সেবার মান নিয়ে গণশুনানিতে যাত্রীরা শুনিয়েছেন এমনই নানা ক্ষোভের কথা।

কি কারণে বাসগুলো ইজারা দিয়ে চালানো হয় এ প্রশ্নও তোলেন অনেকে। শুধু যাত্রীরাই নন নানা ক্ষোভ রয়েছে সংস্থাটির বাস চালক ও হেলপারদেরও।

বাস চালক হেলপারদের অভিযোগ যাত্রীদের নামাতে গেলেও কাচ জানালা সবই ভেঙে দেয় পুলিশ। যাত্রীদের নামতে উঠতে গেলেও একটু সময় লাগে, সে সময়টুকুও দেয় না সার্জেন্টরা।

সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব নজরুল ইসলাম নিজেও স্বীকার করেন যাত্রী হয়রানির কথা। কর্মচারীদের আরো বেশি যাত্রীবান্ধব হওয়ার অনুরোধ করেন তিনি।
তিনি বলেন, ‘নোংড়া বাস যদি দেখি সেটা বিআরটিসির বাস। এটা কমন চিত্র।’

এর আগে ভেহিকেল ট্র্যাকিং সিস্টেম-ভিটিএস এর উদ্ধোধন করা হয়। এর মাধ্যমে এখন থেকে বাসগুলোর অবস্থান এবং তেল নেবার পরিমাণ নির্ণয় করা সম্ভব হবে।