আ.লীগের জাতীয় সম্মেলন, রাজধানী জুড়ে নিরাপত্তাবলয়

8
Print Friendly, PDF & Email

সিনিয়র করসপন্ডেন্ট, ঢাকা:
আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলনকে কেন্দ্র করে রাজধানী জুড়ে নেয়া হয়েছে নিরাপত্তা ব্যবস্থা। বিশেষ করে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ভেতরে এবং আশপাশের এলাকায় রয়েছে আইন শৃংখলা বাহিনীর নিরাপত্তাবলয়। তাছাড়া রাজধানীর প্রবেশপথ গুলোতে নিরাপত্তা চৌকি বসিয়ে পুলিশ ও র‌্যাব নজরদারি করছে। যেমন যাত্রাবাড়ী, টঙ্গী আব্দুল্লাহপুর, গাবতলী আমিনবাজার, পোস্তগোলা এবং পুরনো ঢাকার বাবু বাজার ব্রিজ এলাকা।

তাছাড়া সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল এবং কমলাপুর রেলওয়ে ষ্টেশনেও দেখা গেছে আইনশৃংখলা বাহিনীর তৎপরতা। রেলওয়ে স্টেশন এবং লঞ্চ টর্মিনালে যাত্রী প্রবেশ এবং বের হওয়ার ক্ষেত্রে চলছে ব্যাপক তল্লাশি।

২১তম জাতীয় সম্মেলনকে ঘিরে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সতর্ক রয়েছে। বেশ কয়েকদিন থেকেই মাঠে সক্রিয় রয়েছেন গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর সদস্যরাও।

শুক্রবার (২০ ডিসেম্বর) সকাল ৮টার দিকে রাজধানীর মৎস্য ভবন মোড়ে পুলিশ সদস্যের পাশাপাশি রায়ট কার, এপিসি কার, বোম ডিসপোজাল ইউনিট ও কে নাইনের গাড়ি সতর্ককাবস্থায় রাখা হয়েছে। তাছাড়া সোহরাওয়ার্দী উদ্যানসহ আশেপাশের নিরাপত্তা জোরদার ও সম্মেলনে আসা অতিথিদের আগমন নির্বিঘ্ন করতে ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগ বিশেষ দৃষ্টি রেখেছে। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের আশেপাশের এলাকার সড়কে গাড়ি চলাচল বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে। এসব রুটে চলাচলকারী গাড়ি সমূহকে বিকল্প পথ ব্যবহার করতে বলা হয়েছে। নিরাপত্তা রক্ষায় রাজধানীর শাহবাগ দোয়েল চত্বর টিএসসিসহ আশপাশে পুলিশের পাশাপাশি এপিসি কার, রায়ট কার ও জল কামানও প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

এ বিষয়ে ডিএমপির রমনা জোনের উপ-কমিশনার সাজ্জাদুর রহমান বলেন, আওয়ামী লীগের সবচেয়ে বড় সম্মেলন আজকের এই জাতীয় সম্মেলন। সম্মেলনে সারাদেশ থেকে নেতাকর্মীরা এসে যোগ দেবেন। বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মীর ভিড়ে কেউ যাতে সুযোগ নিতে না পারে, কোন অনাকাঙ্খিত ঘটনা না ঘটে, কোন মহল বিশৃংখলা সৃষ্টি করতে না পারে সেজন্য পুলিশ সতর্ক রয়েছে।

তিনি বলেন, এ সম্মেলন ঘিরে সাদা পোশাকের গোয়েন্দা সংস্থার প্রায় এক হাজারেরও বেশি সদস্য মাঠ পর্যায়ে কাজ করছে। তিনি বলেন, অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে রাজধানীর মৎস্য ভবন, কদম ফোয়ারা, হাইকোর্ট মাজার গেট এলাকা, দোয়েল চত্বর এলাকা, টিএসসি এলাকা, নীলক্ষেত, পলাশী, শাহবাগ, পরীবাগ, হোটেল ইন্টার কন্টিনেন্টাল মোড় ও কাঁটাবন এলাকাতে পুলিশ সদস্যদের মোতায়েন রাখা হয়েছে। একইসাথে রায়ট কার ও এপিসি কারও দমকল বাহিনী, অ্যাম্বুলেন্স এবং মেডিকেল ইউনিট প্রস্তুত রাখা হয়েছে। সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ঘিরে ভেতরে এবং বাইরে স্থাপিত সিসি ক্যামেরাগুলো সক্রিয় করা হয়েছে।

ডিএমপির গণমাধ্যম শাখার উপ-কমিশনার মাসুদুর রহমান বলেন, আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন সফল করতে পুলিশ সব ধরনের নিরাপত্তা প্রস্ততি রয়েছে। যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় মোতায়েন করা পুলিশ সদস্য ছাড়াও রিজার্ভ পুলিশকে সতর্ক অবস্থানে রাখা হয়েছে। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের সবগুলো টিম সাদা পোশাকে সম্মেলনে নিরাপত্তা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন। এর বাইরে ডিএমপির সাইবার ক্রাইম ইউনিট মাঠে কাজ করছে। তারা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলো মনিটরিং করবে, যাতে কেউ গুজব ছড়িয়ে বিশৃঙ্খলার চেষ্টা করতে না পারে।

জাতীয় ২১তম সম্মেলন ঘিরে র‌্যাবের পক্ষ থেকেও নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল সারোয়ার বিন কাশেম বলেন, সম্মেলন ঘিরে র‌্যাব সদস্যরা মাঠে রয়েছে। বিশেষ করে র‌্যাবের টহল টিম সার্বক্ষণিক নজরদারি করছেন। মাসুদুর রহমান বলেন, আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন সফল করতে পুলিশ সব ধরনের নিরাপত্তা প্রস্ততি রয়েছে।

যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় মোতায়েন করা পুলিশ সদস্য ছাড়াও রিজার্ভ পুলিশকে সতর্ক অবস্থানে রাখা হয়েছে। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের সবগুলো টিম সাদা পোশাকে সম্মেলনে নিরাপত্তা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন। এর বাইরে ডিএমপির সাইবার ক্রাইম ইউনিট মাঠে কাজ করছে। তারা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলো মনিটরিং করবে, যাতে কেউ গুজব ছড়িয়ে বিশৃঙ্খলার চেষ্টা করতে না পারে।

জাতীয় ২১তম সম্মেলন ঘিরে র‌্যাবের পক্ষ থেকেও নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল সারোয়ার বিন কাশেম বলেন, সম্মেলন ঘিরে র‌্যাব সদস্যরা মাঠে রয়েছে। বিশেষ করে র‌্যাবের টহল টিম সার্বক্ষণিক নজরদারি করছেন।