ব্যাট হাতে সুযোগের অপেক্ষায় আমিনুল

9
Print Friendly, PDF & Email

স্পোর্টস করসপন্ডেন্টঃ
গত সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি দলে ঢুকেই বেশ হৈচৈ ফেলে দিয়েছিলেন আমিনুল ইসলাম বিপ্লব। কারণ নির্বাচকরা বলেছিলেন ব্যাটসম্যান হিসেবে নয়, বোলার হিসেবে দলে নেওয়া হয়েছে তাকে। এবার বঙ্গবন্ধু বিপিএল আসরে আমিনুল বিপ্লব খেলছেন খুলনা টাইগার্সের হয়ে। নিজের বোলিং, ব্যাটিং, অলরাউন্ড দক্ষতা, খুলনা টাইগার্সের পরিকল্পনার কথা আমিনুল ইসলাম বিপ্লব জানালেন গণমাধ্যমকে।

আগামীকাল শুক্রবার খুলনা টাইগার্সের বিপক্ষে মাঠে নামবে রংপুর রেঞ্জার্স। এখন পর্যন্ত জয়ের দেখা পায়নি রংপুর রেঞ্জার্স। ৩ ম্যাচের সবকয়টিতে পরাজিত। আর ২ ম্যাচের ২টিতেই জয় নিয়ে টেবিলের তিন নম্বরে রয়েছে খুলনা। পরাজয়ের বৃত্তে থাকা রংপুরকে হালকা ভাবে দেখছেন না খুলনার আমিনুল ইসলাম বিপ্লব,

টি-টোয়েন্টি খেলায় দুর্বল দল বলে কিছু নেই। যেকোনো দল যেকোনো সময় কিছু করতে পারে। তবে আমরা টানা দুটি ম্যাচ জিতেছি, এটা আমাদের জন্য একটি ইতিবাচক দিক। আমরা সেভাবেই চাইবো ম্যাচ বাই ম্যাচ খেলার। ওদেরকে হালকাভাবে দেখার কিছু নেই। আমরা আমাদের সেরাটা দিয়ে খেলবো ইনশা আল্লাহ।’

আমিনুল ইসলাম বিপ্লব খুলনা টাইগার্সের একমাত্র লেগ-স্পিনার। নিজের বোলিং এবং প্রস্তুতি নিয়ে গণমাধ্যমের সামনে বিপ্লব জানালেন,

‘এখানে আসলে প্রস্তুতির কিছু নেই। কারণ এটা একটা বড় জায়গা। এখানে যখনই সুযোগ হয় তখনই সব খেলোয়াড়রা চায় নিজের সেরা পারফরম্যান্সটা দেয়ার। ব্যক্তিগতভাবে আমিও চাই যেন প্রত্যেকটি ম্যাচে আমি ভালো করতে পারি। সেটাই আমার লক্ষ্য থাকে এবং সেভাবেই প্রত্যেকটি ম্যাচ ভালো খেলার চেষ্টা করছি।’

বোলিংয়ে ভ্যারিয়েশন ও আর্ম বল নিয়ে কাজ করছেন আমিনুল ইসলাম বিপ্লব। জাতীয় দলের স্পিন বোলিং কোচ ড্যানিয়েল ভেট্টরি থেকে প্রাপ্ত শিক্ষায় আপাতত প্রয়োগ করছেন,

‘আলাদা ভ্যারিয়েশন বলতে আমি সবসময় যেটা করি সেটাই করছি। তবে কোচ ড্যানিয়েল ভেট্টরি যেটা দেখিয়েছে, ওর সঙ্গে যেগুলো নিয়ে কাজ করেছি সেগুলো আপাতত ম্যাচে অ্যাপ্লাই করার চেষ্টা করছি। লেগ স্পিনের সঙ্গে আর্ম বলটি আমি একটি ভ্যারিয়েশন হিসেবে অ্যাড করেছি। আমি এখন আর্ম বলটি করি আরকি। এরপর টপ স্পিন করি, এগুলোই করছি।’

লেগ-স্পিনার মানেই বেশি রান খরচ করবে, গুরুত্বপূর্ণ সময় উইকেট নিয়ে আসবে। তবে রান বন্যার ম্যাচে খারাপ সময়ে লেগ স্পিনারের সাইকোলজি কি থাকে? ব্যাখ্যায় আমিনুল ইসলাম বিপ্লব,

আসলে টি-টোয়েন্টিতে প্রত্যেকটি ম্যাচই লেগ স্পিনারের জন্য চ্যালেঞ্জিং। আর বিশেষ করে যখন চট্টগ্রামে খেলা হয় তখন আরো বেশি। কারণ এখানে ব্যাটসম্যানদের সহায়ক থাকে উইকেট। এখানে কঠিন হয়। তাই অ্যাভারেজ যদি কঠিন হয় তাহলে সেখানে চার ওভারে ৪০ রান দিলে অটোম্যাটিক চাপ চলে আসে। এটাকে আমি চ্যালেঞ্জ হিসেবে নেই আরকি। সেখানে যদি ভালো করতে পারি তাহলে যখন বোলিং উইকেট থাকবে তখন আরো ভালো হবে। সেটাই চেষ্টা করছি।’

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের গত আসরেই নজর কেড়েছিলেন আমিনুল। তবে সেটা ব্যাটসম্যান হিসেবে। দারুণ ব্যাটিং করে ১৩ ম্যাচে করেছিলেন ৪৪০ রান। ছিল ৪টি হাফসেঞ্চুরিও। সেই আমিনুলই বিবেচিত হলেন টি-টোয়েন্টি সংস্করণে।

‘আসলে তেমন কিছু না। আমার হয়তো সেভাবে ব্যাটিংয়ের সুযোগ আসেনি। তবে যখনই যেখানে সুযোগ আসুক না কেন আমি আমার সেরাটা দিয়ে খেলার চেষ্টা করি।’

স্পেশাল কি করেছিলেন যে লেগ স্পিনার হিসেবে আপনাকে মনে হয়েছে?

‘আসলে ব্যাপারটা তা না। অনেকে ভাবে যে আমি এইচপি থেকে বোলিং করা শুরু করেছি। আসলে সেটা না। আমি ছোটবেলা থেকে বোলিং করি। হয়তো তখন পেশাদার বোলার হিসেবে এবং প্রথম পছন্দ হিসেবে আসেনি তখন। এখন যখন ওখান থেকে আল্লাহর রহমতে ভালো করা শুরু করলাম তখন কোচ সাইমন হেলমট আমাকে উপদেশ দিল যে আমার বোলিং যেহেতু ভালো আছে তাই সামনের দিকে বোলিংয়ে ফোকাস করতে। এরপর থেকে আমি বোলিংয়ের প্রতি বেশি ফোকাস করেছি।’

অলরাউন্ডার হিসেবে নিজেকে ধরে রাখতে চান কিনা নাকি যেকোনো একটা? এ বিষয়ে বিপ্লবের বক্তব্য,

কোনো একটা না, তাহলে স্যাটিসফেকশন থাকবে না। যখন বোলিংয়ে যাই বোলিংয়ে ভালো করার চেষ্টা করি। ব্যাটিং ওরকম হয় নাই। সুযোগের অপেক্ষায় আছি। যদি কখনো ভালো ফিল হয় তাহলে তো ভালোই। এটা চ্যালেঞ্জিং। চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করার মজা আছে। এর মধ্যে দিয়েই আগাতে হবে। কোনও সুযোগ নাই। যেহেতু চুজ করছি অলরাউন্ডার হতে হবে নিজেকে। দুইটাকে সমান ভাবেই দেখছি।’

খারাপ ম্যাচ কিংবা ভালো ম্যাচ সব ভুলে পরের ম্যাচ নিয়েই পরিকল্পনা সাজান তরুণ লেগ-স্পিনার আমিনুল ইসলাম বিপ্লব,

‘আসলে বড় চিন্তা করি না। আমি ম্যাচ বাই ম্যাচ খেলার চেষ্টা করি। হয়তো একটা ম্যাচ খারাপ হয়েছে বা ভালো হয়েছে। সেটা আমি ভুলে যাই। পরবর্তী ম্যাচ যেটা থাকে ওখানে ফোকাস করার চেষ্টা করি। কাদের বিপক্ষে কীভাবে খেললে ভালো খেলা যায় আমি সেটাতে ফোকাস করি। যেটা খারাপ হয়েছে সেটা চলে গেছে। সেটা আর আসবে না। পরবর্তী জিনিসগুলো যেন ভালো হয়।’

খুলনা টাইগার্সের হয়ে এবার বিপিএল আসর মাতাচ্ছেন অলরাউন্ডার রবি ফ্রাইলিঙ্ক। বড় ছয় মারতে হলে কোনটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ আমিনুল ইসলাম বিপ্লবকে শিখালেন সতীর্থ ফ্রাইলিঙ্ক।

‘আসলে সবাই জানে ও বিগ হিটার। ও ভালো স্ম্যাশ করতে পারে। ওটাই ওর কাছে জানার চেষ্টা করছিলাম যে বড় ছয় মারতে হলে কোনটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তো আমাকে সেটা এডভাইস করল আরকি। ও বলল যে ভালো পজিশনে লাগানোটা ইম্পরট্যান্ট আর ব্যাট সুইং। সুইং যদি ভালো থাকে তাহলে অটোম্যাটিক হয়ে যাবে।’