অভিনেত্রী নওশাবার মামলা স্থগিতের আদেশ আপিলে বহাল

9

স্পেশাল করসপন্ডেন্ট, ঢাকাঃ
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় অভিনেত্রী কাজী নওশাবা আহমেদের বিরুদ্ধে করা মামলার কার্যক্রম ৬ মাসের জন্য স্থগিত করে হাইকোর্টের দেয়া আদেশ বহাল রইল।

হাইকোর্টের দেয়া আদেশ স্থগিত চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষের করা আবেদনে আজ ‘নো অর্ডার’ আদেশ দেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন পাচ বিচারপতির আপিল বেঞ্চ।

আজকের এ ‘নো অর্ডার’ আদেশের ফলে নওশাবার মামলার কার্যক্রম ৬ মাসের জন্য স্থগিত করে হাইকোর্টের দেয়া আদেশ বহাল রইল বলে জানান তার আইনজীবী।

আদালতে নওশাবার পক্ষে ছিলেন আইনজীবী এ এফ হাসান আরিফ ও ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ।

এর আগে গত ২০ নভেম্বর বিচারপতি মো. রেজাউল হক ও বিচারপতি ভীষ্মদেব চক্রবর্তীর হাইকোর্ট বেঞ্চ নওশাবার এ মামলার কার্যক্রম ৬ মাসের জন্য স্থগিত করে আদেশ দেন।

সেই সঙ্গে এই মামলা কেন বাতিল হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন আদালত। চার সপ্তাহের মধ্যে রাষ্ট্রপক্ষকে এই রুলের জবাব দিতে বলা হয়।

হাইকোর্টের আদেশের পর ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া বলেন: মামলাটি দায়ের করা হয় ২০১৮ সালের ৫ আগস্ট তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায়। কিন্তু তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনটি বিলুপ্ত হয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ২০১৮ হিসেবে কার্যককর হয়েছে ২০১৮ দালের ৫ অক্টোবর।’

‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৬১ ধারার মতে তথ্য প্রযুক্তি আইনের কোনো মামলা বিচারাধীন থাকলে তা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে চলমান থাকবে। কিন্তু ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন কার্যকরের সময় এ মামলাটি বিচারাধীন না, ছিল তদন্তাধীন। তাই এসব যুক্তিতে মামলার কার্যক্রম বাতিল চেয়ে আবেদন করার পর হাইকোর্ট রুলসহ আদেশ দেন।’

নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন চলাকালে ২০১৮ সালের ৪ আগস্ট ফেসবুক লাইভে গুজব সৃষ্টির অভিযোগে উত্তরা থেকে নওশাবা আহমেদকে আটক করে র‌্যাব।

এরপর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় নওশাবার বিরুদ্ধে মামলা হয়। এবং এ মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়। ২০১৮ সালের ২১ আগস্ট পাঁচ হাজার টাকা মুচলেকায় নওশাবা জামিনে মুক্তি পান।