বিশ্বকাপ ফাইনাল হেরে পুরষ্কার জিতলো নিউজিল্যান্ড

8
Print Friendly, PDF & Email

স্পোর্টস ডেস্ক রিপোর্টঃ
নিউজিল্যান্ড পুরুষ ক্রিকেট দল আইসিসির স্পিরিট অফ ক্রিকেট অ্যাওয়ার্ড জিতে নিয়েছে। মূলত ২০১৯ বিশ্বকাপে লর্ডসের সেই নখকামড়ানো ফাইনাল ম্যাচই পুরষ্কারটি তাদের ঘরে যেতে বাধ্য করে। বিবিসি ব্রডকাস্টার মার্টিন জেনকিনসের স্মরণে এই ট্রফিটি এমন ক্রিকেটার কিংবা দলকে দেওয়া হয় যে বা যারা খেলাটির স্পিরিটকে বিকশিত করে, প্রতিপক্ষ বা নিজ দল, দলের অধিনায়ক, আম্পায়ার তথা সংশ্লিষ্ট সকলকে সম্মান প্রদর্শন করে।

কেন উইলিয়ামসনের নেতৃত্বাধীন নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপের ফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে নিয়মিত ইনিংস শেষে টাই করে। যা পরবর্তীতে গড়ায় সুপার ওভারে। কিন্তু ক্রিকেট বিধাতা সেখানেও জিততে দেয়নি কিউইদের। কাগজে কলমে সমান সংখ্যক রান করেও আইসিসির অদ্ভুত এক নিয়মের বলি হয়ে পরাজিতদের কাতারেই থাকতে হয় উইলিয়ামসন, বোল্টদের।

এমসিসির সভাপতি কুমার সাঙ্গাকারা বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডই এই পুরষ্কারের জন্য যোগ্য দাবিদার। উত্তেজনাপূর্ণ দুর্দান্ত এক ফাইনালে তারা যে স্পোর্টসম্যানশিপ দেখিয়েছে তা যথার্থই। ক্রিকেট ইতিহাসে এমন ঘটনা সত্যি অনেকদিন গেঁথে থাকবে। আমরা তাদের স্পিরিট অফ ক্রিকেট নিয়ে আলোচনা করছি। তাদের আচরণ সত্যিই পুরষ্কারের দাবিদার।’

গত জুলাইয়ে লর্ডসের সেই ফাইনাল ছিল রোমাঞ্চে ভরপুর। নিউজিল্যান্ডের দেওয়া ২৪১ রানের সহজ লক্ষ্য তাড়ায় ৮৬ রানেই ৪ উইকেট হারানো ইংল্যান্ডকে একাই টানেন বেন স্টোকস। তার অপরাজিত ৮৪ রানের পরও সবকটি উইকেট হারিয়ে ঠিক ৫০ ওভার খেলে ইংলিশরা সংগ্রহ করে সমান ২৪১ রানই। সুপার ওভারে গড়ানো ম্যাচেও দুই দল শেষ করে সমান সংগ্রহে, তবে বাউন্ডারি নিয়মে এগিয়ে থেকে কিউইদের শিরোপা বঞ্চিত করে প্রথমবার বিশ্বকাপ শিরোপা জিতে ইংলিশরা।

২০১৩ সাল থেকে মার্টিন জেনকিনসের নামানুসারে এই পুরষ্কারটি দিয়ে আসছে মেরিলিবোর্ন ক্রিকেট ক্লাব (এমসিসি)। স্পিরিট অফ ক্রিকেট পুরষ্কারটি এর আগে জিতেছে ডার্বিশায়ারের অলরাউন্ডার ওয়েইন ম্যাডসেন, ইংলিশ ব্যাটসম্যান লুক রাইট, কিউই ব্যাটসম্যান ব্রেন্ডন ম্যাককুলাম, ওরচেস্টারশায়ারের ডানহাতি ব্যাটসম্যান টম ফেল, আনাইয়া শ্রাবসোলে ও গতবার যুগ্নভাবে ড্যান বাওসের এবং ক্রিস অ্যাডওয়ার্ডস।